শেষ বিকেলের মেয়ে- জহির রায়হান

0
38

শেষ বিকেলের মেয়ে উপন্যাস ডাউনলোড pdf। লেখক জহির রায়হানের লেখা “শেষ বিকেলের মেয়ে”  উপন্যাস বইটির পিডিএফ আমাদের এখান থেকে সহজেই ডাউনলোড করে নিতে পারবেন। জহির রায়হানের লেখা উপন্যাসটি সত্যিই অসাধারণ। এই উপন্যাসের শেষের দিকটা খুব ভালো ছিলো। উপন্যাসটির সমাপ্তি টা ভালো না হলে হয়তো উপন্যাসটা কোন মজাই লাগতো না। আপনারা যদি এই অসাধারণ বইয়ের পিডিএফ ডাউনলোড করতে চান তাহলে ছবির নিচে থাকা ডাউনলোড লিংকে ক্লিক করে বইটি পিডিএফ ডাউনলোড করে নিন। শেষ বিকেলের মেয়ে pdf 

শেষ বিকেলের মেয়ে বইটি সম্পর্কে আরও কিছু 

বইয়ের নামঃ শেষ বিকেলের মেয়ে 

লেখকঃ জহির রায়হান

ভাষাঃ বাংলা

পিডিএফ সাইজঃ ৩.১ এমবি  

বিষয়ঃ উপন্যাস 


শেষ বিকেলের মেয়ে pdf -জহির রায়হান

শেষ বিকেলের মেয়ে  বই রিভিউ 

জহির রায়হানের লেখা উপন্যাসটির ‘শেষ বিকেলের মেয়ে’ নাম দেখে মনে হতে পারে যে কোনো নারীর প্রেম কাহিনী বা এরকম জাতীয় কিছু। কিন্তু এই উপন্যাসটি সম্পূর্ণ পড়ে শেষ করার পর ধারণাটি পুরো পাল্টে যায়। কাসেদ নামের এক যুবকের  আবেগ , ভালোবাসা, বাস্তবতা আর রোমান্টিকতায় পূর্ণ এ প্রেমের উপন্যাসের নায়ক চরিত্র। সে পেশায় সামান্য কেরাণি ছিল। এক বৃদ্ধ মা আর নাহার নামের দুঃসম্পর্কের এক বোন তার বাসায় আছে। এ বাসায় সে মানুষ হয়েছে নাহারের মা মারা যাওয়ার পরই।  মিষ্টি চেহারা,  ছিপছিপে দেহ ও স্বল্পভাষী নাহার সব সময় পুরো বাসা সাজিয়ে-গুছিয়ে রাখে।

জাহানারা নামে একটা শিক্ষিত আধুনিক মেয়েকে কাসেদ খুব ভালোবাসে ও তাকে সে বিয়ে করতে চায়। জাহানারাও কাসেদকে অনেক ভালোবাসে বলে মনে হলেও কিন্তু তা সে এ বিষয়টি কোন এক কারনে প্রকাশ করতে পারে না।

একদিন জাহানারার কাজিন শিউলির সাথে জাহানারা জন্মদিনের দাওয়াত খেতে গিয়ে পরিচয় হয় এবং একটা ভালো বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক তাদের মধ্যে তৈরি হয়ে যায়। অবশ্য এই বন্ধুত্বটাকে প্রেম বললেও ভুল হবে না। এভাবেই চলতে থাকে তাদের এই সম্পর্ক অর্থাৎ প্রেম বা বন্ধুত্বের গল্প।

কাসেদের খালাতো বোন সালমা এর মধ্যেই হাজির হয় এবং ছোটবেলা থেকেই সে মনে মনে কাসেদকে ভালোবাসে এসেছে। আজ এখনও বাসে। কিন্তু  কাসেদের অবহেলার কারণে সালমার সাথে আর ঘর বাধা হয়নি। অন্যত্র বিয়ে হয়ে যায় সালমার ও সালমা এক কন্যা সন্তানের মা হয় । অনেকদিন পর সালমা, কাশেদের কাছে  এসে তাকে নিয়ে দূরে কোন এক জায়গায় পালিয়ে যেতে বলে, এক্ষেত্রে তাকেও লাভ হয়নি। কারণ কাসেদ জাহানারার কথা ভেবে সালমাকে ফিরিয়ে দেয়।

এদিকে জাহানারা ও কাসেদের সম্পর্কে ফাটল ধরে শিউলি আর কাসেদের বন্ধুত্বের সম্পর্কের কারণে। সবসময় যে মানুষটিকে ভালোবেসে এসেছে, সে মানুষটির দুয়ার থেকে ব্যর্থ হয়ে এসে শিউলিকে বিয়ের প্রস্তাব দিলে,  সব পুরুষ একরকম যেকোনো কথা বলে হালকা অপমান করে শিউলি ও কাসেদকে চিরতরের জন্য ফিরিয়ে দেয়।

অপরদিকে কাসেদের মা গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ায়, নাহারের বিয়ে ঠিক করেও তিনি নাহারের বিয়ে দেখে যেতে পারেনি। কারণ নাহারের বিয়ের আগেই তিনি মৃত্যুর কোলে ঢলে পরেন।

গল্পের এই মুহূর্তেটিকে সকল পাঠকদের বিশেষ করে আমাকেও অনেক কষ্ট দিয়েছে। মা হারোনোর বেদনা কি যে তা এখনো মনে পড়ে। আমার আল্লাহর কাছে একটিই ইচ্ছা যে, পৃথিবীর সকল মা-য়েরা যদি হাজার হাজার বছর বেঁচে থাকতেন! 

এরপর কাসেদের খালু নাহারকে বিয়ে দেয়ার জন্য কাসেদের কাছে নাহারকে নিয়ে গেলে কাসেদের সামনে পৃথিবীটা শূন্য হয়ে যায় বলে তার মনে হয়।

শেষ বিকেলের আকাশের দিকে তাকিয়ে যখন কাসেদ নানান ধরনের কথা ভাবতে থাকে এবং তার মাথায় আসতে থাকে তখন দরজায় হঠাৎ করে শব্দ হয়। কে??

উত্তর আসে একটি মেয়ে এসেছে। শেষ বিকেলের মেয়ে!

কাসেদের নিকট সারাজীবনের জন্য এসেছে সে। কে সেই মেয়েটি???

জাহানারা নাকি সব ভুল বুঝতে পেরে?

বন্ধুত্বের এক ফাঁকে ভালোবেসে ছিল যে সেই শিউলি?

স্বামী সংসার ত্যাগ করে সেই সালমা?

নাকি অন্য মেয়ে এসেছিল শেষ বিকেলের মেয়ে হয়ে??? তাহলে কে সে? 

সম্পূর্ণ বইটি পড়তে হলে আমাদের এখান থেকে বইটির পিডিএফ ডাউনলোড করে পড়ে ফেলুন। আশা করি ভালো লাগবে আপনার। 

শেষ বিকেলের মেয়ে বই-Shesh bikeler meye pdf 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here